Save

Save

কাপড় আমদানিতে শুল্ক ফাঁকি

গেল দুই বছরে দেশে ফেব্রিক বা কাপড়ের বাণিজ্যিক আমদানি কমেছে প্রায় ৩০ শতাংশ। যার উল্লেখযোগ্য একটি অংশ আনা হচ্ছে তৈরী পোশাক কারখানার নামে। এভাবে শুল্কমুক্ত সুবিধায় কাপড় এনে স্থানীয় বাজারে বিক্রি করছে তৈরী পোশাক আর বাণিজ্যিক আমদানিকারকদের একটি চক্র। যাতে হচ্ছে রাজস্ব ফাঁকি আর মুদ্রা পাচার। শুল্ক গোয়েন্দা অধিদফতরের অনুসন্ধানে এমন ১৪টি আমদানির চালান পরীক্ষার পর প্রায় ১০ কোটি টাকা অনিয়মের তথ্য মিলেছে।

বিদেশ থেকে বন্ড সুবিধায় কাপড় বা ফেব্রিক আমদানি হয় পোশাক তৈরী করে বিদেশে রফতানির উদ্দেশ্যে। আর বাণিজ্যিক ভিত্তিতে আমদানি হয় স্থানীয় বাজারে বিক্রির জন্য। সম্প্রতি বাণিজ্যিক বা শুল্ক পরিশোধ করে ফেব্রিক আমদানি কমেছে উল্লেখযোগ্য হারে। যার রহস্য উদঘাটনে নামে শুল্ক গোয়েন্দারা।

অনুসন্ধানে মিলেছে, কিছু রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান কাঁচামাল হিসেবে ফেব্রিক এনে তা দিয়ে পোশাক তৈরী করছেনা। সেই ফেব্রিক বিক্রি করছেন খোলাবাজারে। আবার কোন কোন বাণিজ্যিক আমদানিকারক নিজেদের পরিবর্তে কাপড় আনছেন তৈরী পোশাক কারখানার নামে। অর্থাৎ উভয়ের মধ্যে রয়েছে যোগসাজস।   

মূলত ২০১৬ সালে কিছু ফেব্রিক আর গেল বছর সবধরনের ফেব্রিকের শুল্ক বৃদ্ধি করা হয়। ফলে বেশি মুনাফার লক্ষ্যে শুল্ক দিয়ে আমদানি কমিয়ে দেয়ার পাশাপাশি বন্ধ করে দিয়েছে কেউ কেউ। কাস্টমসের হিসেবে গত ২ বছরে আমদানি কমেছে প্রায় ৩০ শতাংশ।

শুল্ক গোয়েন্দা অধিদফতর বলছে, এই প্রক্রিয়ায় রাজস্ব ফাঁকি আর অর্থ পাচার হচ্ছে। তাতে চরম প্রতিযোগিতায় পড়ছে বৈধ ব্যবসায়ীরা।

আগামীতেও এমন অপতৎপরতা রোধে কঠোর নজরদারির কথা জানিয়েছেন শুল্ক গোয়েন্দা অধিদফতরের মহাপরিচালক। 

চ্যানেল 24

387 South, Tejgaon I/A
Dhaka-1208, Bangladesh
Email: newsroom@channel24bd.tv
Tel: +8802 550 29724
Fax: +8802 550 19709

Save

Save

Like us on Facebook
Satellite Parameters
Webmail

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save