এই সময় এমন ঝড়-বৃষ্টি স্বাভাবিকঃ আবহাওয়া অফিস

কয়েকদিন পরপর কালবৈশাখীর তাণ্ডব। রাজধানী ঢাকাতেই আঘাত হানছে বেশি। হঠাৎই কোরেই কি বাড়লো ঝড়-বৃষ্টি? এমন প্রশ্নের উত্তরে আবহাওয়া অফিস বলছে, বাতাসের গতিবেগ, তাপমাত্রা ও বৃষ্টিপাতের পরিমাণ বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, এটি স্বাভাবিকই। তবে, ক্ষয়ক্ষতি কমাতে সচেতনতার পরামর্শ তাদের।

বৈশাখ অর্থাৎ, এপ্রিল-মে মাসে বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে যে বজ্রঝড় বয়ে যায়, তাকে বলা হয় কালবৈশাখি। গ্রীষ্মে ভূপৃষ্ঠের তাপমাত্রা  বেড়ে যাওয়া ও অন্যান্য আবহাওয়াগত কারণে এই ধ্বংসাত্মক ঝড়ের সৃষ্টি। বজ্রপাত এই ঝড়ের অন্যতম বৈশিষ্ট।
এই বৈশাখে ঢাকায় পরপর বেশেকয়েকদিন ঝড় হওয়ায় মনে হতে পারে, ঝড়ের প্রকোপ বেশি। আসলে তা নয়। এটা স্বাভাবিক এবং বাতাসের গতিবেগও অন্যান্য বারের তুলনায় কম। ১৯৮৮ সালের এপ্রিলে ঝড়ের বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল প্রতি ঘন্টায় ১১১ কিলোমিটার, ১৯৯৫ সালে ১১৩ কিলোমিটার আর ১৯৯৮ ও ২০১৭ তে ৯৩ কিলোমিটার। সে তুলনায় এবার কমই আছে, সর্বোচ্চ ৮৩ কিলোমিটার।
এপ্রিল মাসে দেশের স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত ১২৭ মিলিমিটার। ২০১৪ সালে স্বাভাবিকের চেয়ে ৭৯ শতাংশ কম, ২০১৫ সালে ৩৩ শতাংশ বেশি, ২০১৬ সালে ৫১ শতাংশ কম এবং ২০১৭ সালে ১০৪ শতাংশ বেশি বৃষ্টিপাত হয়েছে। আর এবার হয়েছে স্বাভাবিকের চেয়ে ৯% কম বৃষ্টিপাত।
চলতি মাসের তাপমাত্রাও স্বাভাবিক। ২০১৫ ও ১৬ সালে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৭.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং ২০১৭ তে ৩৭.৫। আর এবারের এপ্রিলে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে ৩৭.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
কালবৈশাখি ঝড় আধা ঘন্টা থেকে সর্বোচ্চ এক ঘন্টার মধ্যে শেষ হয়ে যায়। তাই এই সময়টুকু ঘরে থাকার পরামর্শ দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। কারণ, বজ্রপাতে প্রাণহানি দিন দিন বাড়ছে। ঘটছে অন্যান্য দুর্ঘটনাও।

চ্যানেল 24

387 South, Tejgaon I/A
Dhaka-1208, Bangladesh
Email: newsroom@channel24bd.tv
Tel: +8802 550 29724
Fax: +8802 550 19709

Save

Save

Like us on Facebook
Satellite Parameters
Webmail

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save