Friday, December 15, 2017

রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার প্রক্রিয়া নিয়ে বিশ্লেষকদের ভিন্ন মত

সব ঠিকঠাক থাকলে আগামী দুই মাসের মধ্যে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার প্রক্রিয়া শুরু হতে পারে।

গতকাল বাংলাদেশ ও মিয়ানমার যে সমঝোতায় পৌঁছেছে তাতে এমনটাই বলা হয়েছে। তবে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক ও সাবেক কূটনীতিকরা বলছেন, রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তা ও নাগরিকত্ব নিশ্চিত না হলে এই সমঝোতা কোনো কাজে আসবে না। আর ক্যাম্পে থাকা রোহিঙ্গারাও বলছেন, জাতিসংঘ এই প্রক্রিয়ায় না থাকলে এবং ধর্মীয় স্বাধীনতা না পেলে তারা মিয়ানমারে ফিরবেন না। 

রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার বিষয়ে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে যে সমঝোতা হয়েছে, তাতে এটি স্পষ্ট নয় যে, নতুন করে আসা রোহিঙ্গাদেরকেই ফিরিয়ে নেয়া হবে নাকি পুরাতনরাও ফিরবে? তাছাড়া এই প্রক্রিয়ায় জাতিসংঘ সম্পৃক্ত কি না তাও এখনও প্রকাশ করা হয়নি। ক্যাম্পে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গারাও বলছেন, জাতিসংঘ এই প্রক্রিয়ায় না থাকলে এবং ধর্মীয় স্বাধীনতা না পেলে তারা মিয়ানমারে ফিরবেন না। 

এখন পর্যন্ত জানা যাচ্ছে, আগামী দুই মাসের মধ্যে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার প্রক্রিয়া শুরু হবে। আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক ও সাবেক কূটনীতিকরা বলছেন, রোহিঙ্গারা রাখাইনে ফিরে নিরাপত্তা  ও নাগরিকত্ব না পেলে এই সমঝোতা বা চুক্তি কোনো কাজে আসবে না। প্রশ্ন আছে, রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে মিয়ানমার আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়ন করবে কি না? রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার বিষয়ে ১৯৯২ সালে দু দেশের চুক্তিতে যে নীতিমালা ছিলো, তার ভিত্তিতে এবারও এই প্রক্রিয়া শুরু করার কথা জানিয়েছে সু চির দপ্তর। 

বিশ্লেষকরা বলছেন, ৯২ আর ২০১৭ এর পরিস্থিতি সম্পূর্ণ ভিন্ন। এই বিশ্লেষকরা বলছেন, জাতিসংঘের হস্তক্ষেপ ছাড়া এরকম জটিল সংকট নিরসনের নজির নেই। তারা মনে করেন, রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার এই প্রক্রিয়ায় যদি জাতিসংঘ সম্পৃক্ত না থাকে তাহলে মিয়ানমারের টাল-বাহানার সুযোগ থেকেই যাবে। 

চ্যানেল 24

387 South, Tejgaon I/A
Dhaka-1208, Bangladesh
Email: newsroom@channel24bd.tv
Tel: +8802 550 29724
Fax: +8802 550 19709

Save

Save

Like us on Facebook
Satellite Parameters
Webmail

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save