সন্ত্রাসবিরোধী আইনে মামলার সীমা বেঁধে দেয়ার পরামর্শ আইনজীবীদের | বিশেষ সংবাদ

CHANNEL 24



Back প্রচ্ছদ বিশেষ সংবাদ সন্ত্রাসবিরোধী আইনে মামলার সীমা বেঁধে দেয়ার পরামর্শ আইনজীবীদের

সন্ত্রাসবিরোধী আইনে মামলার সীমা বেঁধে দেয়ার পরামর্শ আইনজীবীদের

সন্ত্রাসবিরোধী আইনে মামলার বিচার শুরুর আগে, অনুমোদন নিতে হয় সরকারের। তবে, এ জন্য কোনো সময়সীমা নেই।

ফলে এই অনুমোদন নিতে কেটে যায়, দীর্ঘ সময়। যার সুযোগ নেয়, আসামিসহ বিভিন্ন পক্ষ। এতে ন্যায় বিচারের জন্য অপেক্ষা করতে হয়, বিচার প্রার্থীদের। সাবেক আইনমন্ত্রী ও আইনজীবীরা বলছেন, সরকারের অনুমোদনের ক্ষেত্রে আইনে সময়সীমা বেঁধে দেয়া উচিত। এজন্য সংশোধন করতে হবে, ২০০৯ সালের সান্ত্রাস বিরোধী আইন।

গত মাসের ২৪ তারিখ, রাজধানীর দক্ষিণখানে অপারেশন রিপল টোয়েন্টিফোর নামে জঙ্গিবিরোধী অভিযান চালায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যেখানে নিহত হয় দুজন। পরে ৮জনকে আসামি করে সন্ত্রাসবিরোধী আইনে মামলা করে পুলিশ।

এরকম অভিযান বা রাজনৈতিক সহিংসতার পর, সন্ত্রাসবিরোধী আইনে মামলা হলেও, আইনের একটি ধারার কারণে, থমকে এর মামলার কার্যক্রম। যেমন, রাজধানীর পল্লবী ও  সবুজবাগ থানায় ২০০৯ সালের দুটি মামলার বিচার শুরুর অনুমোদন দেয়া হয় সাত বছর পরে, ২০১৬ সালে। এছাড়া ২০১০ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে এরকম ৯৫টি মামলার কার্যক্রম শুরুর অনুমোদন দেয় সরকার।

সন্ত্রাসবিরোধী আইনের ৪০ ধারায় বলা আছে, সরকারের পূর্ব অনুমোদন ছাড়া কোনো আদালত এই আইনে করা মামলার অভিযোগ আমলে নিতে পারবেন না। আবার কতদিনের মধ্যে এই অনুমোদন দিতে হবে, আইনে তারও কোনো সময়সীমা বেঁধে দেয়া নেই। আইনজীবীরা বলছেন, এর ফলে মামলা অনুমোদনের ক্ষেত্রে বৈষম্য তৈরি হয়। সুবিধা নেয় আসামিসহ বিভিন্ন পক্ষ।

সাবেক আইনমন্ত্রী শফিক আহমেদ মনে করেন, মামলার কার্যক্রম শুরুর অনুমোদন বিষয়ক এই ধারাটি সংশোধন করা উচিত।

২০০৯ সালে সন্ত্রাসবিরোধী আইন প্রণয়ন করে সরকার। পরে ২০১২ ও ২০১৩ সালে এর কিছু ধারায় সংশোধন আনা হয়।

downloadLink; ?>