Print this page

রুপালী পর্দার প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির গল্প কথায় নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন

গল্পটা ঢাকাই সিনেমার এক নায়কের। সেলুলয়েডের ফিতায় কেটেছে যার চার দশক।

উপহার দিয়েছেন দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে ব্যবসাসফল ছবি। বলছি ইলিয়াস কাঞ্চনের কথা। ক্যারিয়ারের ৪০ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে এই অভিনেতা কথা বলেছেন, চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের সাথে। জানিয়েছেন নিজের পাওয়া-নাপাওয়ার কথা। ইলিয়াস কাঞ্চন। দেশীয় চলচ্চিত্রের ইতিহাসে সর্বাধিক ব্যবসাসফল সিনেমার নায়ক। তার অভিনীত 'বেদের মেয়ে জোসনা' চলচ্চিত্রটি হয়ে আছে কালজয়ী ছবি। রূপালি পর্দায় রোমান্টিক নায়ক হিসেবে অভিষেক হলেও অ্যাকশন, কমেডি কিংবা পারিবারিক সব চরিত্রেই নিজেকে প্রমাণ করেছেন। রাজ্জাক, আলমগীর, ফারুক, জসিম কিংবা মান্নাদের মতো নায়কদের সময়ে নিজেকে চিনিয়েছেন আলাদাভাবে। অভিনয়ের মুন্সিয়ানায় নির্মাতাদের কাছে তিনি হয়ে ওঠেন এপার বাংলার উত্তম কুমার। 

১৯৭৭ সালে পরিচালক সুভাষ দত্তের হাত ধরে সিনেমায় পথচলা শুরু করা ইলিয়াস কাঞ্চন এ বছর পূর্তি করলেন ক্যারিয়ারের ৪০ বছর। চলচ্চিত্রে চার দশকের প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি নিয়ে এই অভিনেতা চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের মুখোমুখি হয়েছেন। শুরুটা বসুন্ধরা দিয়ে এর পর অভিনয় করেছেন আরো ৩৬৫টি চলচ্চিত্রে। প্রশ্ন ছিলো, কোন ছবিটি বদলে দিয়েছে তার ক্যারিয়ার?? যে চলচ্চিত্র মানুষকে স্বপ্ন দেখায়, সমুদ্র সময় পেরিয়ে সেই চলচ্চিত্রই এখন দুঃস্বপ্নের বেড়াজালে বন্দি। এই সংকট থেকে উত্তোলনে তরুণ শিল্পীদের উপরই আস্থা রাখতে চান এই নায়ক। বাংলা চলচ্চিত্রের ক্রান্তিলগ্নে ব্যক্তিস্বার্থ ভুলে সবাইকে এক হয়ে কাজ করার কথা বললেন ইলিয়াস কাঞ্চন।