এবার সামাজিক নির্যাতনের শিকার হয়ে মিয়ানমার ছাড়ছে রোহিঙ্গারা

কোনোভাবেই থামছে না রোহিঙ্গা ঢল। রাখাইনে হত্যাযজ্ঞ আর জ্বালাও-পোড়াও না থাকলেও, এবার সামাজিক নিপীড়নের মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের দেশ ছাড়তে বাধ্য করা হচ্ছে। যা মিয়ানমারের আন্তর্জাতিক মহলের চোখ এড়ানোর কৌশল বলে মনে করেন বিশ্লেষকরা। তারা বলছেন, রোহিঙ্গাদের দ্রুত ফেরত পাঠাতে না পারলে কঠিন সংকটে পড়বে বাংলাদেশ।

সীমান্ত খোলা থাকায় প্রতিনিয়ত নির্বিঘ্নে বাংলাদেশে প্রবেশ করছে রোহিঙারা। গেল ২৫ আগস্ট থেকে যে সংখ্যা ৬ লাখের বেশি। আর নতুন পুরনো মিলিয়ে অন্তত ১১ লাখ।

সম্প্রতি আসা রোহিঙারা জানিয়েছে, আপাতত মিয়ানমারে জালাও-পোড়াও কিংবা হত্যাযজ্ঞ তেমন নেই। তবে সামাজিক নিপীড়ন চলমান। বিশ্লেষকদের মতে, বিশ্বসম্প্রদায়ের চোখ ফাঁকি দিতে রোহিঙাদের দেশত্যাগে বাধ্য করার কৌশল পাল্টেছে মিয়ানমার। 

কারো কারো মতে, প্রায় অর্ধশত বছর ধরে তিলে তিলে এই সংকট দীর্ঘায়িত করেছে  মিয়ানমার। অতীতে বাস্তুচ্যুত করা রোহিঙ্গাদের মধ্যে আন্তর্জাতিক চাপে একটি অংশকে ফেরত নিলেও সহায় সম্বল ফিরিয়ে না দিয়ে কিংবা কষ্টে রেখে আবারো দেশ ছাড়তে বাধ্য করা হয় তাদের। 

রোহিঙ্গারা এবারই সবচেয়ে বেশিসংখ্যায় এসেছে বাংলাদেশে। তাই পাকাপাকিভাবে তাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠাতে না পারলে অশনি সংকেত দেখছেন স্থানীয়রা। 

জোরাল কূটনৈতিক তৎপরতা ছাড়াও রোহিঙাদের নিবন্ধনসহ নানাকাজে আন্তর্জাতিক প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিতের আহবান সংশ্লিষ্টদের।

রোহিঙাদের মিয়ানমারে ফেরত নেয়ার দেশি-বিদেশি উদ্যোগের মধ্যেই নতুন নতুন রোহিঙার এদেশে আসা অব্যাহত রয়েছে। এর পেছনে সেখানে নিপীড়ন ছাড়াও বাংলাদেশে আগে থেকে আসা রোহিঙাদের ভাল থাকাও বড় কারণ। এখন এই জনগোষ্ঠীকে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া দীর্ঘায়িত হলে ঘণীভূত হবে সংকট, মত সংশ্লিষ্টদের। 

Last modified on 08-11-2017 01:10:47 PM

চ্যানেল 24

387 South, Tejgaon I/A
Dhaka-1208, Bangladesh
Email: newsroom@channel24bd.tv
Tel: +8802 550 29724
Fax: +8802 550 19709

Save

Save

Like us on Facebook
Satellite Parameters
Webmail

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save