জলদুস্যদের হামলা আর মুক্তিপণ আদায়ে নি:স্ব হচ্ছে জেলেরা 

দেশের উপকূলীয় এলাকায় মাছ ধরতে যাওয়া জেলেদের ২৪ শতাংশই সরাসরি জলদস্যুদের আক্রমণের শিকার। 

তাদের মধ্যে ৬৪ শতাংশকেই দিতে হয় মুক্তিপণ। যা পরিশোধে চড়া সুদে ঋণ নিয়ে দারিদ্রের বৃত্তে ঘুরপাক খেতে হয় জেলেদের। বর্ষায় ইলিশ ধরার মৌসুমে জলদস্যুরা বেশি আক্রমণ করে।  চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় উঠে এসেছে এই তথ্য। যাতে বলা হয়েছে, আক্রান্তদের বেশিরভাগই নৌ পুলিশের সহায়তা পান না। সাগরে প্রতিদিনই মাছ ধরতে যান হাজারও জেলে। 

কিন্তু সেখানে তারা কতটা নিরাপদ-তা জানতে ছয়টি এলাকায় কয়েকমাস ধরে অনুসন্ধান চালান চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমুদ্র বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের একদল গবেষক। যাতে মিলেছে উদ্বেগজনক তথ্য। গবেষণায় দেখা গেছে, জেলেদের ২৪ শতাংশই জলদস্যুদের আক্রমনের শিকার হন। যাদের ৬৪ শতাংশকেই পাঁচ হাজার থেকে ৩ লাখ টাকা পর্যন্ত মুক্তিপন দিয়ে ছাড়া পেতে হয়। আর এই উৎপাত বেশি চলে ইলিশের ভরা মৌসুমে। যার বড় অংশই হয় চট্টগ্রাম অঞ্চলে। 

গবেষণা বলছে, আক্রান্ত হওয়ার পরও সাগরে যান ৮৬ শতাংশ জেলে। ৬০ শতাংশ একাধিক আর পাঁচ শতাংশ জেলে ৫ বার পর্যন্ত আক্রমনের শিকার হয়েছেন। এসব ক্ষেত্রে নৌ-পুলিশের সাথে জলদস্যুদের সম্পর্ক নিয়েও আছে অভিযোগ। প্রতিকার না পাওয়ায় ৭২ শতাংশ ঘটনাই জানানো হয়না পুলিশকে। গবেষণায় প্রাপ্ত তথ্যের বাস্তব চিত্র মেলে জেলেদের ভাষ্যে। তারা বলছেন, জলদুস্যদের হামলা আর মুক্তিপণ দিতে গিয়ে নি:স্ব হচ্ছেন তারা। কোস্ট গার্ডের মহাপরিচালক জানান, চেষ্টা সত্বেও সীমিত জনবলের কারণে অনেক সময় সম্ভব হয়না জলদস্যুতা প্রতিরোধ। ইন্টারন্যাশনাল সী ফেয়ারারস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের অর্থায়নে পরিচালিত এই গবেষণায় সমুদ্রে নিরাপত্তা বাড়ানো, বিভিন্ন সংস্থার মধ্যে সমন্বয় এবং জেলেদের অর্থ সহায়তাসহ বেশ কিছু সুপারিশও তুলে ধরা হয়। 

 

চ্যানেল 24

387 South, Tejgaon I/A
Dhaka-1208, Bangladesh
Email: newsroom@channel24bd.tv
Tel: +8802 550 29724
Fax: +8802 550 19709

Save

Save

Like us on Facebook
Satellite Parameters
Webmail

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save