অর্থনীতির তুলনায় চট্টগ্রাম বন্দরের সক্ষমতা কম

দেশের আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম পরিচালনায় সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ চট্টগ্রাম বন্দর। অথচ দেশের অর্থনীতির তুলনায় বন্দরের সক্ষমতা কম। দক্ষতা বাড়াতে চোখে পড়ার মতো নেয়া হয়নি দীর্ঘমেয়াদি ও কার্যকর পদক্ষেপও। তাই, আইসিডি কিংবা বন্দর পরিচালনার মতো দায়িত্ব বেসরকারি খাতের সাথে যৌথভাবে করা গেলে সঙ্কট কমতে পারে অনেকখানি, এমনটিই মনে করছেন অর্থনীতিবিদ এবং বন্দর কার্যক্রমের সাথে যুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলো।

 

বন্দরের পাশেই এ যেন আর একটা বন্দর। পণ্য ওঠানামা চলছে দিনের প্রায় চব্বিশ ঘণ্টা। চলছে, দেশের বাইরে পাঠানোর নানামুখী প্রস্তুতি। আর চিত্র দেখা যায় দেশের অন্যতম বড় বেসরকারি কন্টেইনার ডিপো সামিট অ্যালায়েন্স পোর্টে।

দেশের রফতানি কার্যক্রমে গতি আনতে এই প্রতিষ্ঠানের ভূমিকাও অনন্য। তাদের হিসাব অনুযায়ী, বছরে কেবল তৈরি পোশাক খাতের রফতানির অন্তত পাঁচ ভাগের একভাগকে সহযোগিতা করে থাকে এসএপিএল। যার গণ্ডি বিস্তৃত দেশের সীমানা ছাড়িয়েও। আর এ রকম আরো ১৬টি প্রতিষ্ঠান একই ধরনের কাজ করছে বাংলাদেশে।  

তবে, এই খাতের ব্যবসায়ীদের মতে, দেশের অর্থনীতির তুলনায় বন্দরগুলোর সক্ষমতা কম। যার নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে দীর্ঘদিন ধরে। এছাড়া, দক্ষতা বাড়াতেও নেয়া হয়নি দীর্ঘমেয়াদি এবং কার্যকর কোনো উদ্যোগ। তাই, আইসিডি কিংবা বন্দর পরিচালনার মতো দায়িত্ব বেসরকারি খাতের সাথে যৌথভাবে করা গেলে এই সঙ্কট কমতে পারে অনেকখানি। কেননা, এখনো আমদানি কার্যক্রমে প্রতিষ্ঠানগুলোর অংশ মাত্র ২৪ শতাংশ। আর বিশ্লেষকরা বলছেন, সরকারি বেসরকারি অংশীদারিত্ব বাড়ানো গেলে কমে আসবে এই খাতের অব্যবস্থাপনা এবং অনিয়মও। 

দেশের মোট আমদানি রফতানি কার্যক্রমের প্রায় ৯৫ শতাংশ এখনো সমুদ্রনির্ভর। যা ভবিষ্যতেও বাড়তে পারে আরো বেশি।

চ্যানেল 24

387 South, Tejgaon I/A
Dhaka-1208, Bangladesh
Email: newsroom@channel24bd.tv
Tel: +8802 550 29724
Fax: +8802 550 19709

Save

Save

Like us on Facebook
Satellite Parameters
Webmail

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save